পৃথিবীর ভূ-স্বর্গ কাশ্মীর ভ্রমণ-পর্ব -২

 কাশ্মীর ভ্রমণ শুরুঃ-

১০ জুলাই ২০১৮ সকাল সাড়ে দশটায় রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ঢাকা টু কলকাতা ফ্লাইট আমাদের যাত্রা শুরু।আমার সাথে আমার ভ্রমণসঙ্গী আরো তিনজন।তারা হলেনঃ- খোকন আলম, নুরুল ইসলাম , সাইফুল ইসলাম।আমরা চারজনই একটু অলস প্রকৃতির আরাম প্রিয় মানুষ।তাই আমরা আমাদের ভ্রমণের জন্য বেছে নেই বিমান। যথাসময়ে সকাল সাড়ে আট টায় ঢাকা শাহজালাল ইন্টারন্যাশনাল বিমান বন্দরে পৌঁছে গেলাম।যথারীতি সকাল ৯ টার মধ্যে আমাদের ইমিগ্রেশন কমপ্লিট করে নিলাম।ইমিগ্রেশন কমপ্লিট করে আমরা ভিতরে আমাদের কিছু টাকা ডলার করে নিলাম সাথে বেশ কিছু বাংলাদেশী টাকা নিলাম, কারণ বাংলাদেশী টাকা কলকাতাতে ভালো দাম পাওয়া যায়।নির্দিষ্ট সময়ে আমাদের ফ্লাইট ওড়ার জন্য তৈরি।সিকিউরিটি চেক সেরে বিমানে উঠে বসলাম। ১০:২৬ এ আমাদের ফ্লাইট টেক অফ করল। ৩৫ মিনিটের মত সময় লাগলো আমাদের কলকাতার মাটি স্পর্শ করতে । আমরা ৩৫ মিনিটে কোলকাতা পৌছে গেলাম। আমরা যেহেতু একটু অলস প্রকৃতির লোক তাই আমরা আমাদের ট্যুর প্ল্যান টা একটু অলস ভাবে সাজালাম।আজকে কলকাতাতে অবস্থান করবো যদিও কলকাতাতে আমাদের তেমন কোন কাজ নেই।আমরা কলকাতা এয়ারপোর্টে ল্যান্ড করার পর যথারীতি এয়ারপোর্ট এর যাবতীয় কাজ সেরে নিলাম।এয়ারপোর্ট থেকে বের হয়ে সোজা আমরা চলে গেলাম আমাদের হোটেলে। যদিও হোটেল আগে ভোগ করা ছিলো না আমরা কলকাতা শহরে পৌঁছে আমাদের পছন্দমত হোটেল বুক করে নিলাম।

কলকাতা যা যা করবেনঃ-

কলকাতা শহর টা ঠিক আমাদের ঢাকা শহরের মতোই বরং আমাদের ঢাকা শহরে চাইতে কিছুটা অউন্নত।অনেক পুরাতন শহর হিসেবে ঘুরে দেখার মতো অনেক জায়গায় আছে।হোটেলে উঠে ফ্রেশ হয়ে দুপুরের খাবার সেরে বের হয়ে গেলাম কিছু জায়গা ঘুরে দেখার জন্য । যেহেতু আমাদের পরবর্তী যাত্রা পরদিন সকাল 7:15 কলকাতা টু দিল্লি,দিল্লিতে আমাদের দুই ঘন্টা ট্রানজিট রয়েছে।দুই ঘন্টা পর দিল্লি টু শ্রীনগর আমাদের ফ্লাইট।তাই আজকে কলকাতা শহরটা ঘুরে দেখার জন্য বেরিয়ে গেলাম যদিও বেশ কয়েকবার কলকাতা আসা হয়েছে ।হাতে বেশ অবসর সময় আছে বিধায় কলকাতার কিছু দর্শনীয় স্থান ভ্রমণের জন্য বেরিয়ে পড়লাম।প্রথমে চলে গেলাম ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হল দেখার জন্য।তারপর গেলাম হাওড়া ব্রিজ,সাইনসিটি, মাদার ওয়াক্স মিউজিয়াম, ইকোপার্ক।কলকাতা শহরে যদি আরো অনেক জায়গা আছে ঘুরার মত তবু আমরা এই কয়েকটি জায়গায় একটু ঘুরিয়ে নিলাম।যথারীতি এর মধ্যে বেশকিছু সময় আমাদের কেটে গেল।আমাদের মূল ভ্রমণটা হচ্ছে কাশ্মীর আর লিখতেছি কাশ্মীরের ওপর তাই কলকাতা নিয়ে আর বিস্তারিত কিছু লিখলাম না।

আমরা সন্ধ্যার মধ্যে আমাদের হোটেলে পৌঁছে গেলাম। সন্ধ্যার পর নিজেদের ছোটখাটো প্রয়োজনীয় জিনিস যা নিউ মার্কেট এলাকা থেকে সংগ্রহ করে নিলাম।তোর সময়টুকু অল্প ঘোরাঘুরি আর টুকটাক প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার মধ্যে দিয়ে কেটে গেল।নয়টার মধ্যে রাতের খাবার সেরে হোটেলে চলে গেলাম। যেহেতু আমাদের ফ্লাইট সকাল 7:15 সেক্ষেত্রে এয়ারপোর্টের উদ্দেশ্যে মাঝরাত্রে আমাদের বের হয়ে যেতে হবে।তাই আর দেরি না করে ঘুমানোর প্রস্তুতি নিয়ে নিলাম। 9:30 এর মধ্যে ঘুমিয়ে গেলাম।আমরা হোটেলের ম্যানেজারকে বলে আগেই এয়ারপোর্ট এ যাওয়ার জন্য গাড়ি ঠিক করে রাখলাম। আমাদের গাড়ি ঠিক চারটায় আমাদের হোটেলের নিচে এসে আমাদের জন্য অপেক্ষা করবে। তাই আমরা সাড়ে তিনটায় ওঠার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখলাম আমি সাইফুল ইসলাম ভাইকে বলে রাখলাম সাড়ে তিনটায় সবাইকে ডাক দিয়ে দেওয়ার জন্য। কারণ সাইফুল ইসলাম ভাই সময়ের প্রতি খুব সতর্ক। যথারীতি সাইফুল ভাই সবাইকে সাড়ে তিনটায় ঢেকে দিলেন । 20 মিনিটের মধ্যে আমরা ফ্রেশ হয়ে গাড়িতে চলে গেলাম। আমরা যে এলাকায় হোটেলটিতে ছিলাম সেই এলাকা থেকে এয়ারপোর্ট যেতে মাঝরাত্রে সময় লেগেছিল 35 মিনিট। আমরা 35 মিনিটের মধ্যে এয়ারপোর্টে পৌঁছে গেলাম।কলকাতা পর্ব এখানেই শেষ।পরবর্তী অংশে কাশ্মীর যাত্রা শুরু করব। ( চলবে…)

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*